স্বাস্থ্য

দুধের উপকারিতা ও অপকারিতা ক্লিক করে [গরুর দুধ খাওয়ার নিয়ম] দেখুন

দুধ একটি আদর্শ খাদ্য, দুধের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ভিটামিন। আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা দুধ খেতে ভালোবাসেন। দুধ উপযোগী খাদ্য হলেও এর উপকারিতা ও অপকারিতা উভয় রয়েছে, এ সম্পর্কে অনেকের জানা নেই।

তাই আজকের পোস্টে আমরা দুধের উপকারিতা, অপকারিতা, রাতে দুধ খাওয়ার উপকারিতা, দুধের মালাই এর উপকারিতা এসকল তথ্য নিয়ে আলোচনা করব। দুধ সকলের পরিচিত একটি খাদ্য।

দুধের যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমন অপকারিতাও রয়েছে। আমাদের অনেকের কাছে দুধ একটি পছন্দ খাবার আবার অনেকের কাছে  অপছন্দ খাবার। তবে দুধের অপকারিতা থেকে দুধের উপকারিতা বেশি।

দুধে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন বি যা আমাদের শরীরের হাড় ও পেশীকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। নিয়মিত দুধ খেলে শরীরে শক্তি সঞ্চয় হয় এবং ক্লান্তি দূর হয়ে যায়।

দুধে থাকা পুষ্টিগুণ মানসিক চাপ দূর করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন দুধ খেলে হার্ট ভালো থাকে কম ফ্যাটযুক্ত দুধ খেলে রক্তের ভালো কোলেস্টেরলের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। দুধে থাকা ক্যালসিয়াম হাড় এর পাশাপাশি দাঁতের ক্ষয় রোধ করে

এবং দাঁতকে ভালো রাখে। ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ রাখতে নিয়মিত দুধ খাওয়া জরুরী। দুধ চুলকে স্বাস্থ্যকর করে তুলতে সাহায্য করে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে দুধ ওভারিয়ান ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

যাদের কিডনিতে পাথর হয়েছে তাদের দুধ খাওয়ার ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। শরীরে Lactase নামক এনজাইম এর অভাব আছে এমন রোগীদের দুধ খাওয়া উচিত নয়। এলার্জি রোগীদের দুধ খাওয়া নিষেধ।

পাকস্থলীর আলসার বা গ্যাস্ট্রিক রোগীদের জন্য দুধ খাওয়া ক্ষতিকর। যাদের পেটে অপারেশন করা হয়েছে তাদের দুধ খাওয়া ঠিক না। দুধে যে প্রোটিন থাকে তা খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে।

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক গ্লাস করে লো ফ্যাট দুধ খেলে শরীরের কোলেস্টেরল লেভেল অনেকটাই কমে এবং শরীর সুস্থ থাকে। গরুর দুধ ভিটামিন এ, ডি এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ যা আমাদের হৃদযন্ত্র কে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক গ্লাস গরম দুধ খেলে দুধের যে বায়োঅ্যাক্টিভ ধর্ম টা স্ট্রেস কমিয়ে ভালো ঘুম হতে সাহায্য করে। অস্টিওআর্থারাইটিস সমস্যা থাকলে প্রতিদিন রাতে দুধ খেলে এ ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

রাতে এক গ্লাস দুধ খেয়ে ঘুমালে সকালে এনার্জি লেভেল বেড়ে যায়। দুধে ভিটামিন বি 12 থাকে যা ত্বকের ইলাস্টিসিটি বজায় রাখতে সাহায্য করে, ফলে অকালে চামড়া ঝুলে যায় না ত্বক নরম ও সুন্দর থাকে।

দুধের মালাই শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করে। এটি পুষ্টিকর ও ঠান্ডা। দুধের মালাই এ রয়েছে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস, প্রোটিন, ভিটামিন এ ভিটামিন ডি, নিয়াসিন ও রিবোফ্লাবিন।

দুধের সর ত্বকের যত্নে নানাভাবে কাজে লাগে। মালাই এ উপস্থিত স্যাচুরেটেড ফ্যাট একাধিক ভাবে ত্বকের জেল্লা বাড়ায়। পরিবেশ দূষণ সহ নানা কারণে ত্বকের ভেতর প্রদাহ সৃষ্টি হয়,

এসময় দুধের সর মুখে লাগালে তা প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। রূপচর্চার জন্য দুধের মালাই এর কোনো জুড়ি নেই। ছোট থেকে বড় সকলের দুধের মালাই খেতে পছন্দ করেন। পুষ্টিগুণে পাশাপাশি এর স্বাদও অতুলনীয়।

Bangla Master

Bangla Master ওয়েবসাইট এর পক্ষ থেকে আপনাদেরকে স্বাগতম। এই ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা বিষয়ক তথ্য আপনি জানতে পারবেন। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত সকল আপডেট তথ্য এই ওয়েবসাইটে নিয়মিত দেয়া হয়ে থাকে। আপনাদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং চাকরি বিষয়ক তথ্যগুলো আমরা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করেছি।
Back to top button