ব্যবসার আইডিয়া

মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা করার নিয়ম ২০২২ (অনলাইনে মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা)

বর্তমান সময়ে সবার হাতে স্মার্টফোন এবং সবাই স্মার্টফোনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে।  আপনার এ বিষয়টি মাথায় রেখে ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করতে পারেন। এখন আপনার অনেকে জানেন না মোবাইল রিচার্জ

অথবা ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা কিভাবে শুরু করা হয়। মোবাইল রিচার্জ এর সাথে আমরা সবাই পরিচিত। মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা সম্পর্কে অনেকেই আমরা জানি। প্রতিদিন আমাদের মোবাইল রিচার্জ করার প্রয়োজন পড়ে।

আধুনিক যুগে সব মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। মোবাইল মোবাইলে কথা বলার জন্য ইন্টারনেট ব্রাউজ করার জন্য মোবাইলে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্যালেন্স থাকতে হয়। যখনই ব্যালেন্স শেষ হয়ে যায়।

তখন আমাদের রিচার্জ করার প্রয়োজন হতে পারে। এখন আপনারা জানবেন কিভাবে মোবাইল ব্যালেন্স রিচার্জ করার ব্যবসা করা যায়।  আর্টিকেলটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়লে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন।

বাংলাদেশের মোবাইল রিচার্জের ব্যবস্থা খুবই লাভজনক। অনেক মানুষ এই মোবাইলের ব্যবসা করে লাভবান হচ্ছে। অত্যন্ত কম খরচে এবং মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা করা যায়।

মোবাইল ব্যবহারকারীরা দিন দিন বাড়ছে এবং মোবাইল রিচার্জের চাহিদা মেটাতে পারছে। বাংলাদেশের মতো জায়গায় মোবাইল রিচার্জ এর ব্যবসা শুরু করা খুব সহজ এবং একটু কম পরিশ্রম করলে ব্যবসায় লাভবান হওয়া যায়।

আধুনিক বিশ্বে মোবাইল ব্যবহার করে বেশি এবং মোবাইল ব্যবহার করার জন্য মোবাইলে রিচার্জ করার প্রয়োজন হয়। সেক্ষেত্রে আপনারা প্রতি মাসে 15 থেকে 20 হাজার টাকা ইনকাম করতে পারেন।

মোবাইল রিচার্জ এর ব্যবসা করার জন্য তেমন বেশি কিছু দরকার হয় না। বর্তমানে, স্মার্ট ফোন এবং ইন্টারনেটের সাহায্যে সফটওয়্যার ব্যবহার করে খুব সহজে মোবাইল রিচার্জ করা যায়।

কিন্তু, অতীতে মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা করার জন্য অনেক গুলো মোবাইল ফোনের দরকার হতো এখন হয় না। আপনারা চাইলে ডিজিটাল ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

এক্ষেত্রে একটি স্মার্টফোন অথবা একটি কম্পিউটার হলে আপনার যেকোন অপারেটরের জন্য ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করতে পারেন। যেটা অনেক  লাভবান হিসাবে মনে করি। ৩০ থেকে ৬০ হাজার টাকা

বিনিয়োগ করে শুরু করে দিতে পারেন এই ব্যবসা। কিন্তু, মাথায় রাখবেন, মূলধন নির্ভর করবে আপনার আনুসাঙ্গিক খরচের উপর। ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসার মধ্যে আরেকটি ব্যবসার নাম হচ্ছে ড্রাইভ প্যাক ব্যবসা।

আপনারা চাইলে বিভিন্ন ধরনের ড্রাইভ ব্যাগ বিক্রি করে সেখান থেকে লাভবান হতে পারেন। ড্রাইভ প্যাক হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের প্যাকেজ বিক্রি করা। আপনি একটি এপ্স ব্যবহার করে বাংলালিংক,

গ্রামীণফোন, এয়ারটেল, রবি, টেলিটক মোট পাঁচটি সিমের প্রিপেইড এবং পোস্টপেইড নাম্বারে ফ্লেক্সিলোড করতে পারেন। এক্ষেত্রে প্রতি 1000 এ 30 টাকা থেকে 32 টাকা কমিশন পাবেন।

এছাড়া 499 থেকে 599 টাকার কম্বো প্যাকেজ এ 100 থেকে 150 টাকা কমিশন পাওয়া যায়। এছাড়া রবি জিপি এয়ারটেল 360 টাকা অথবা 199 মিনিটের এমবি প্যাকেজ আপনারা আরো বেশি কমিশন পাবেন।

আশা করি এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনাদের সামনে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছি। আরও যদি কোন তথ্য পেতে চান। আমাদের ওয়েবসাইটে জেনে নিতে পারেন। আমি চেষ্টা করবো আপনাদের সামনে সম্পূর্ণ তথ্য জানিয়ে দেওয়ার।

Bangla Master

Bangla Master ওয়েবসাইট এর পক্ষ থেকে আপনাদেরকে স্বাগতম। এই ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা বিষয়ক তথ্য আপনি জানতে পারবেন। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত সকল আপডেট তথ্য এই ওয়েবসাইটে নিয়মিত দেয়া হয়ে থাকে। আপনাদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং চাকরি বিষয়ক তথ্যগুলো আমরা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করেছি।
Back to top button