স্বাস্থ্য

খুশকি দূর করার উপায় [ছেলেদের, বাচ্চাদের এবং মেয়েদের] চিরতরে খুশকি দূর করার উপায় দেখুন

বাতাসে আর্দ্রতা বেশি হলে চুলের লোম কুপের ময়লা জমে। এর ফলে মাথায় খুশকি হয় শুধু তৈলাক্ত নয় যাদের মাথার ত্বক শুষ্ক তারাও এর শিকার হয়ে থাকেন। আবার গরম পানি দিয়ে গোসল করার কারণেও খুশি হতে পারে।

একটু সচেতন হলেই কিন্তু খুশকি সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। আজকের এই পোস্টটিতে আমরা খুশকি দূর করার উপায় এই নিয়ে আলোচনা করব। ত্বকের মৃতকোষ গুলির অত্যাধিক বৃদ্ধি হলে খুশকি হয়।

মাথার চুল দীর্ঘদিন অপরিষ্কার থাকলে সেক্ষেত্রে চুলের গোড়ায় ছত্রাক তৈরি হয় যা খুশকির সৃষ্টি করে। খুশকি দূর করার কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে সেগুলো  আলোচনা করা হলো – পাতিলেবুর রস সরষের তেল মিশিয়ে মিশ্রণটি ভালো করে

পুরো স্ক্যাল্প মাসাজ করতে হবে, মিনিট পাঁচেক চুলের গোড়ায় ভালো করে মালিশ করার পর চুল ধুয়ে ফেলতে হবে। খুশকির সমস্যা পুরোপুরি দূর না হওয়া পর্যন্ত সপ্তাহে দুইবার এইভাবে পাতিলেবুর রস ব্যবহার করলে খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

খুশকির সমস্যা দূর করতে টক দই অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপাদান মাথার ত্বকে টক দই দিয়ে ভালো করে মালিশ করতে হবে এরপর মিনিট দশেক রেখে ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

খুশকির সমস্যা দূর না হওয়া পর্যন্ত ব্যবহার করতে হবে। খুশকির সমস্যা দূর করতে রিঠা অত্যন্ত কার্যকরী, রিঠা পাউডার বা রিঠা সিদ্ধ পানি দিয়ে চুল ভিজিয়ে ঘণ্টাখানেক রেখে দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে অন্তত দুই থেকে তিনবার রিঠা পানি ব্যবহার করুন। পেঁয়াজের রস খুশকি দূর করতে সহায়ক। পেঁয়াজ মিহি করে বেটে রস ছেকে মাথার স্ক্যাল্পে লাগাতে হবে 20 থেকে 25 মিনিট রাখতে হবে

এভাবে কয়েকদিন পেঁয়াজের রস ব্যবহার করার ফলে চুলের পুষ্টি গুণ বাড়বে এবং খুশকি দূর হবে। মেথি দুই থেকে তিন চামচ সারারাত ভিজিয়ে রেখে সকালে পানি ছেঁকে নিয়ে সে ভেজানো মেথি দিয়ে পেস্ট তৈরি করতে হবে

এবং তা মাথার স্ক্যাল্পে মাসাজ করতে হবে ম্যাসাজ করার পর 30 মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। 30 মিনিট পর চুল ধুয়ে পরিষ্কার করতে হবে এভাবে মেথি ব্যবহার করলে চুল গোড়া থেকে শক্ত এবং ঝলমলে হয় এবং খুশকি দূর হয়।

চা গাছের তেল ঔষধি গুণসম্পন্ন এমন একটি উদ্ভিদ তেল যা বহুদিন ধরে ব্রেন, সোরিয়াসিস সহ আরো কয়েকটি ত্বকের রোগ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। চাগাছের তেলের মধ্যে রয়েছে anti-inflammatory

ও অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য যা খুশকির উপসর্গগুলো দূর করতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরার তেলে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, এন্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক কে ধ্বংস করে।

আপেল সাইডার ভিনেগার ছত্রাক বৃদ্ধিতে বাধা দেয় এবং ত্বককের পিএইচ ভারসাম্য ঠিক রাখে। খুশকি দূর করার অনেক শ্যাম্পুতে স্যালিসিলিক এসিড পাওয়া যায় অর্থাৎ অ্যান্টি ড্যানড্রাফ

স্যালিসিলিক এসিড ব্যবহার করা হয়। স্যালিসিলিক এসিড এ anti-inflammatory বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের খসখসে ভাব দূর করে এটি খুশকি চিরতরে দূর করতে সহায়তা করে। মাথার খুলির তকে ছত্রাকের সংখ্যা বেশি হয়ে গেলে

বা সংক্রামক বেড়ে গেলে তেলগ্রন্থি থেকে তৈলাক্ত উপাদান বেশি পরিমাণে নির্গত হয় যার ফলে খুশকি সৃষ্টি হয়। ছেলেদের মাথায় খুশকি দূর করার কার্যকরী উপায় সমূহ হলো- দিনের অধিকাংশ সময় ধুলোবালি

এবং অতিরিক্ত রোদে থাকার কারণে ছেলেদের ক্ষেত্রে খুশকির প্রবণতা বেশি। তাই মাথার ত্বক সব সময় পরিষ্কার রাখতে হবে। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনে ছেলেদের মাথার খুশকি দূর করতে অত্যন্ত কার্যকরী।

ছেলেদের ত্বকে খুশকি দূর করতে অলিভ অয়েল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ অলিভ অয়েল প্রাকৃতিকভাবেই মশ্চারাইজার ও ক্লিনজার হিসেবে কাজ করে অ্যালোভেরা উপাদান ছেলেদের মাথার ত্বকের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া সমূহ ধ্বংস করে চুলকে করে তুলে সজীব এবং সতেজ।

Bangla Master

Bangla Master ওয়েবসাইট এর পক্ষ থেকে আপনাদেরকে স্বাগতম। এই ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা বিষয়ক তথ্য আপনি জানতে পারবেন। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত সকল আপডেট তথ্য এই ওয়েবসাইটে নিয়মিত দেয়া হয়ে থাকে। আপনাদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং চাকরি বিষয়ক তথ্যগুলো আমরা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করেছি।
Back to top button