উৎসব

শবে কদরের আমল ও ফজিলত [সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন]

আজ চলছে পবিত্র রমজান মাসের 26 তম দিন। আজকে রাত্রের পরবর্তী দিন 27 রমজান কে লায়লাতুল কদর হিসেবে পরিচিত। এই রাতকে বিশ্বের মুসলমানরা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে পালন করে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা

এই রাতকে হাজার মাসের চেয়েও উত্তম বলে ঘোষণা দিয়েছেন। কদর শব্দের অর্থ পরিমাণ নির্ধারণ ও হুকুম  যেহেতু এই রাতে সৃষ্টিকুলের ভাগ্য নির্ধারিত। এই অংশের যেটুকু এ রমজান মাস থেকে পরবর্তী রমজান মাস পর্যন্ত বাস্তবায়ন

যোগ্যতা ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আদিষ্ট ফেরেশতাদের কাছে নিয়ে স্থানান্তর করা হয় তাই। তাই এ রাতের নামকরণ করা হয় ‘লাইলাতুল কদর’। এছাড়াও ‘লাইলাতুল কদর’ এর ব্যাপারে তাফসিরবিদরা বেশ কয়েকটি ব্যাখ্যা উল্লেখ করেছেন।

আপনারা অনেকেই শবে কদরের রাতের আমল সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এবং সহিহ হাদিস সম্পর্কে জানতে চান। আজকে আমরা এই পোস্টের মাধ্যমে জানাব। লাইলাতুল কদরের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো,

এই গৌরব রজনীতে মানব জাতির পথ-প্রদর্শক ও মুক্তির সনদ আল কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে। তাই এ রাতের গুরুত্ব অনেক রাতের জন্য বেশ কিছু নিদর্শন পরিলক্ষিত হয়। যেমন এই রাতে আবহাওয়া ঠান্ডা থাকবে, বৃষ্টি হতে পারে।

অর্থাৎ এই রাতে আল্লাহ বান্দাদের কোন রকম কষ্ট দিতে চান না। তখন ধরে নিতে হয় আজ শবে কদরের রাত। তাই আপনাদেরকে অবশ্যই শবে কদরের রাত তালাশ করতে হবে।

সাধারণত 27 রমজান শবে কদর পালন করা হয়। তবে 20 রমজানের পর থেকে 21, 23, 25, 27 এবং 29 রমজানকে শবে কদরের রাত হিসেবে পালন করা হয়। তাহলে বন্ধুরা, এই পোস্টের মাধ্যমে আমি আপনাদের জানিয়ে দিলাম।

শবে কদর নামাজের নিয়ম ২০২২

লাইলাতুল কদরের নামাজের নিয়ম ২০২২

আপনারা কি শবে কদরের আমল সম্পর্কে জানতে চান? তাহলে আসুন আমাদের ওয়েবসাইটে। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আমরা আপনাদের সামনে শবে কদরের আমল ফজিলত নামাজ পড়ার নিয়মাবলী সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

শবে কদর সম্পর্কে সর্বাধিক বিশুদ্ধ ও বিতর্কমুক্ত অভিমত হলো, শবে কদর শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতেই হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে কারো জন্য ইবাদত করা সম্ভব হলে ২৭তম রাতে কিছুতেই উদাসীন থাকা উচিত নয়।

বিশেষ করে ওই দিন মাগরিব ও এশার নামাজ মসজিদে গিয়ে জামায়াতের সঙ্গে আদায় করলে হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী শবে কদরের ফজিলত পাওয়া যাবে। আপনারা কিভাবে কদরের নামাজ পড়ার নিয়ম সম্পর্কে অবগত আছেন?

যদি জেনে থাকেন তাহলে তো আরো খুশি হব  যদি জেনে না থাকেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই শবে কদরের নামাজ পড়ার নিয়মাবলী সম্পর্কে অবগত থাকতে হবে। অন্যান্য নামাজের মতই শবে কদরের নামাজের কোন পার্থক্য নেই।

দুই রাকাত দুই রাকাত করে সারারাত ব্যাপী যতো খুশি ততো নামাজ পড়া যায়। এছাড়া কোরআন তেলাওয়াত করতে পারেন করতে পারেন, জিকির করতে পারেন। তবে এ শবে কদরের নামাজ পড়া বেশ কিছু নিয়মাবলী রয়েছে।

এ সময় সূরা ফাতিহা বেশ কয়েকবার এবং বেশি বেশি পড়তে হবে। সেই সাথে সূরা ইখলাস, সূরা নূর, বেশি বেশি আমল করতে হবে। আজকে আমরা এই পোস্টের মাধ্যমে আপনাদের সাথে সকল তথ্য শেয়ার করেছি। আশা করি আপনারা যথেষ্ট অবগত হয়েছেন।

Bangla Master

Bangla Master ওয়েবসাইট এর পক্ষ থেকে আপনাদেরকে স্বাগতম। এই ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা বিষয়ক তথ্য আপনি জানতে পারবেন। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত সকল আপডেট তথ্য এই ওয়েবসাইটে নিয়মিত দেয়া হয়ে থাকে। আপনাদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং চাকরি বিষয়ক তথ্যগুলো আমরা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করেছি।
Back to top button